in

ভার্চুয়াল থেকে হাতের লিখা প্রেম পত্র খুব বেশি শক্তিশালী।

এই  সময়ে আমাদের অনুভূতি প্রকাশ করার জন্য আমাদের কাছে অনেকগুলো প্ল্যাটফর্ম রয়েছে, তবুও আমরা নির্দ্বিধায় প্রকাশ করা থেকে নিজেকে আটকে রাখি। কথা বলার জন্য আমরা এখনো বেছে নি একই পুরানো ওয়ান-লাইনার মেসেজ বা ইমোজিগুলোর ওপর নির্ভর করি। এই খেত্রে বলা চলে একটি প্রেমের চিঠি লেখার জন্য সাবধানতার সাথে কাগজ নিতে হয়, মনের কথাগুলো লেখার জন্য একটি বিশেষ কালিও বেছে নিতে হয়, প্রেমিক-প্রেমিকারা একটি প্রেমের চিঠি বার বার পড়ত, যত বার ই পড়ত তত বার ই ভাল লাগতো। একটা চিঠি লিখতে ঘণ্টার পর ঘণ্টা সময় পার হয়ে যেত ।  কিন্তু আফসোস, বর্তমান প্রজন্মের বেশিরভাগই তাদের সঙ্গীর জন্য কখনোই কোনো চিঠি লেখে না। আশ্চর্যের বিষয় হলো, বেশিরভাগ সময়েই প্রেমের চিঠির শক্তিকে ক্ষুদ্র করে দেখা হয় এবং চিটচিটে হওয়ার জন্য এড়িয়ে যায়। প্রিয়জনদের কাছে প্রেমের চিঠি কেন লিখবেন, জেনে নিন।

#1 শক্তিশালী।

আপনার লেখা প্রেমপত্রগুলো কেবল কাগজের টুকরোই নয়, বরং এগুলো আপনার সঙ্গীর মধ্যে দৃঢ় অনুভূতি জাগ্রত করার ক্ষমতা রাখে। যখন আপনার অনুভূতিগুলো কাগজের উপর ছড়িয়ে পড়ে, আপনি নিজের দুর্বলতাগুলো তার কাছে নির্দ্বিধায় তুলে ধরেন, তখন অন্য কোনোকিছুই আপনার সঙ্গীকে এর চেয়ে বেশি খুশি করতে পারে না।

#2 ভার্চুয়াল ভালবাসা

বলা যায় আপনার মুঠো ফোনের মাধ্যমে পাঠানো ভার্চুয়াল মেসেজগুলোর তুলনায় চিঠির অক্ষরগুলো স্থায়ী। অস্থায়ী হওয়ায় আপনি মেসেজগুলো ধরে রাখতে পারবেন না। মেসেজগুলো দেখতে পাবেন ঠিকই কিন্তু সেগুলো আপনার হাতে থাকা চিঠির মতো অনুভব করতে পারবেন না। চিঠিগুলো সহজেই সংরক্ষণ করা যায়, যখনই একলা লাগবে বা পুরনো স্মৃতিগুলো ঘেঁটে দেখতে মন চাইবে, তখন আপনি সেগুলো আবার পড়তে পারবেন।

#3 বাস্তবিক ভালবাসা।

একটি চিঠিতে যদি আপনার নামটি দেখতে পান তবে অন্যরকম এক ভালোলাগা কাজ করে। এটি একান্তই ব্যক্তিগত একটি সম্পদ যা আপনাকে এবং কেবল আপনাকেই দেয়া হয়েছে। আপনার হাতের চিঠিটি, যা আপনার প্রিয় মানুষটি দীর্ঘ সময় ধরে চিন্তা করার পরে লিখেছেন। আর এই বিষয়গুলোই চিঠিকে আরও বেশি মূল্যবান করে তোলে।

#4 সুখী অনুভুতি।

ভালবাসার চিঠিতে আপনি এমনকিছু লেখেন যা প্রাপকের প্রতি আপনার অনুভূতিগুলো প্রকাশে সাহায্য করে। এই অনুভূতিগুলো আপনাকে সুখী, অনুপ্রাণিত এবং জীবন্ত করে তোলে। যখন আপনার সঙ্গী আপনার লেখা চিঠিটি পাবেন, তখন অবশ্যই বিস্মিত এবং চমকিত হবেন। আর এমনকিছু করতে পেরে আপনি নিশ্চয়ই নিজেকে আরও বেশি সুখী অনুভব করবেন।

#5 ভালবাসা প্রকাশের এটি একটি দারুন মাধ্যম।

এমন সময় এসে যখন প্রিয়জনের মনের কথাটি জানানোর সঠিক উপায় খুঁজতে রীতিমতো আপনাকে যুদ্ধে নামতে হয়! কিন্তু একটি চিঠি লিখেই এই সমস্যার সমাধান মিলতে পারে খুব সহজে। আর তাতে সম্পর্ক আরও গভীর হয়। আপনি যেকোনো সময় মন খুলে সবকিছু লিখতে পারেন। প্রিয় মানুষটিও আপনার আবেগগুলো পড়তে এবং আরও অনেক বেশি অনুভব করতে পারে। 

চাইলে আজি আপনার প্রিজনকে একখান পত্র লিখতে পারেন। দেখেবেন অন্য রকম এক ভাললাগা কাজ করছে।

This post was created with our nice and easy submission form. Create your post!

What do you think?

Written by Azaher Ali Rajib

Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Loading…

0

Comments

0 comments

জিনিষটা কি হতে পারে?

মুজিব বর্ষে আয়োজনে যা যা রয়েছে।