in

মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক

প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে সব জায়গায় মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক করেছে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। এক্ষেত্রে ১২টি স্থান উল্লেখ করে কঠোর নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

মঙ্গলবার (২১ জুলাই) এ সংক্রান্ত একটি পরিপত্র জারি করেছে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়।

পরিপত্রে বলা হয়- ১. সরকারি, আধা সরকারি স্বায়ত্বশাসিত এবং বেসরকারি অফিসে কর্মরত কর্মকর্তা ও কর্মচারি ও সংশ্লিষ্ট অফিসে আসা সেবা গ্রহীতারা বাধ্যতামূলক মাস্ক ব্যবহার করবেন। সংশ্লিষ্ট অফিস কর্তৃপক্ষ বিষয়টি নিশ্চিত করবেন।

২. সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালসহ সকল স্বাস্থ্যসেবা কেন্দ্রে আগত সেবা গ্রহীতাদের আবশ্যিকভাবে মাস্ক ব্যবহার করতে হবে। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে বিষয়টি নিশ্চিত করতে হবে।

৩. শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, মসজিদ, মন্দির, গির্জাসহ সকল ধর্মীয় উপসনালয়ে মাস্ক ব্যবহার নিশ্চিত করতে হবে।

৪. শপিংমল, বিপনি বিতান ও দোকানের ক্রেতা-বিক্রেতাদের আবশ্যিকভাবে মাস্ক ব্যবহার করতে হবে।

৫. হাট-বাজারে ক্রেতা-বিক্রেতাদের মাস্ক ব্যবহার করতে হবে। মাস্ক না পরে কোনো পণ্য কেনাবেচা করা যাবে না।

৬. গণপরিবহনের (সড়ক, নৌ, রেল ও আকাশ) চালক, চালকের সহকারী এবং যাত্রীদের মাস্ক পরে যাতায়াত করতে হবে। গণপরিবহনে ওঠার আগেই মাস্ক পরতে হবে।

৭. গার্মেন্টস ফ্যাক্টরিসহ সকল শিল্প কারখানায় কর্মরত কর্মীদের মাস্ক ব্যবহার নিশ্চিত করতে হবে।

৮. হকার, রিক্সা, ভ্যানচালকসহ সকল পথচারীর মাস্ক ব্যবহার নিশ্চিত করতে হবে। আর এটা আইনশৃঙ্খলা বাহিনী নিশ্চিত করবে।

৯. হোটেল রেস্টুরেন্টে কর্মরত ব্যক্তি এবং জনসমাবেশ চলাকালীন আবশ্যিকভাবে মাস্ক পরতে হবে।

১০. সকল প্রকার সামাজিক অনুষ্ঠানে অংশ নেওয়া অতিথিদের মাস্ক পরতে হবে।

১১. বাড়িতে করোনা উপসর্গের রোগী থাকলে ঘরের অন্যান্য সদস্যদের মাস্ক ব্যবহার করতে হবে।

এই নির্দেশনা দেশের সকল নাগরিকের জন্য প্রযোজ্য হবে। পরিপত্রে বলা হয়েছে, প্রতিটি ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠান এবং আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী মাস্ক ব্যবহার নিশ্চিত করবে।

এর আগে ঘরের বাইরে মাস্ক ব্যবহার না করলে জেল ও জরিমানার বিধান করে সরকার। ২০১৮ সালের সংক্রমণ আইনের ২৪ (১,২), ২৫(১-এর ক,খ) এবং ২৫ (২) ধারায় ব্যবস্থা নেয়ার কথা বলা হয়েছে।

এই ধারা অনুযায়ী ঘরের বাইরে মাস্ক ব্যবহার না করলে শাস্তি সর্বোচ্চ ছয় মাসের জেল এবং এক লাখ টাকা জরিমানা বা উভয় দণ্ড হতে পারে।

This post was created with our nice and easy submission form. Create your post!

What do you think?

Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Loading…

0

টয়লেটের চেয়েও মোবাইল ফোনে বেশি রোগ-জীবাণু!!!

করোনায় মৃত প্রতি ৫ জনে চারজনই পুরুষ আর একজন নারী।