in

কানের যন্ত্রণা?? জেনে নিন ঘরোয়া সমাধান।

রাতে সবকিছু সম্পন্ন করে বিছানায় শোয়ার জন্য গেলেন। আচমকা দেখলেন ডান কাত হয়ে শুতে পারছেন্না। আপনার ডান কানে প্রচন্ড ব্যথা হচ্ছে। কোথা থেকে আসলো এই ব্যথা?  আপনি তো সম্পূর্ণ সুস্থ স্বাভাবিক একজন মানুষ। করোনার এই সময়ে হাসপাতালে যেতেও ভয় পাচ্ছেন। এখন ঘরোয়াভাবে আপনি উপায় খুজছেন কী করলে মুক্তি পেতে পারেন। আজকের আর্টিকেলে টি আপনার জন্যই। চলুন দেখে নেওয়া যাক কানের ব্যথা থেকে মুক্তি পাওয়ার কিছু ঘরোয়া উপায়।

#1 রসুন এবং পেয়াজ।

রসুন এর স্বাস্থ্যগুণ বলে শেষ করা যাবেনা। পা থেকে মাথা পর্যন্ত সমস্যায় কোনো না কোনোভাবে রসুন আপনার শ্রেষ্ঠ বন্ধু হতে পারে৷ আপনার কানের ব্যথা যদি নিয়মিত হয় এবং ভেতরের ইনফেকশন নয়, বরং বাহিরের দিকে ব্যথা হয় এবং কোনোকিছু শোনার সময় ব্যথা অনুভব করেন তাহলে প্রতিদিন এক কোয়া কাচা রসুন খান। ইনশাআল্লাহ কার্যকর ফলাফল পাবেন। তাছাড়া আপনি একটি সাসপেনশন বা ড্রপ বাসাতেই তৈরি করতে পারেন। 

৩ কোয়া রসুন সরিষা তেলে ভাজুন এবং বাদামি হয়ে গেলে চুলা থেকে নামিয়ে মথে একটা ভালো মিশ্রণ তৈরি করুন। তারপর দুই কানে এই ড্রপ ব্যবহার করুন এক ফোটা করে। আর পেয়াজের ক্ষেত্রে তা ১০ মিনিট ধরে অল্প পানিতে কম হিটে চুলায় সেদ্ধ করুন। তারপর তা চিপে রসগুলো বের করে নিন। এখান থেকে অল্প একটু করে কানে দিন। এগুলো প্রাথমিক সমাধান, অসুধের বিকল্প নয়। তাই ব্যথা বেশি এবং স্থায়ী হলে ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী অসুধ সেবন করতে হবে।

#2 হিট এবং আইস।

গরম এবং ঠান্ডা দুই বিপরীত ভাই।  কিন্ত দুনোজনই আপনার কানের প্রাথমিক ব্যথায় দ্রুত সমাধান নিয়ে হাজির হতে পারে। ইলেকট্রিক হিটিং প্যাড কিংবা হট ওয়াটার ব্যগ ব্যবহার করে ধীরে ধীরে কানের বাহিরের পাশে হিট প্রয়োগ করে দেখুন। ব্যথা কমে যাবে। একই কথা বরফের ক্ষেত্রেও প্রযোজ্য। 

কাপড়ে বা পলিথিনে বরফ নিয়ে কানের পাশে ধরে রাখুন। উভয় পদ্ধতি ২০ মিনিট ধরে প্রয়োগ করুন সর্বোচ্চ ফলাফল এর জন্য। তবে যাদের কানে ঠান্ডায় কিংবা এলার্জি জনিত কারণে ব্যথা হয়েছে তাদের জন্য বরফ ব্যবহার করা অনুচিত। 

#3 বাথক্যাপ ব্যবহার করুন।

পুকুরে, শাওয়ারে, বালতি মগ দিয়ে যেভাবেই গোসল করেন না কেন একটি বাথক্যাপ ব্যবহার করুন। আপনার কানে যদি পানি ঢুকে যায় তাহলে আপনার ব্যথা বাড়বে বৈ কমবেনা। বাথক্যাপ ব্যবহার করে আপনি আপনার কানকে সুরক্ষিত রাখতে পারেন। এই বাথক্যাপ এখন বিভিন্ন সুপারশপে এভেইলেবল পাওয়া যায়। 

#4 অলিভ ওয়েল।

স্বাস্থ্যগুণে টইটুম্বুর আমাদের আরেক বন্ধুর নাম অলিভ ওয়েল। চুলায় এক কাপের মত তেল গরম করে নিন(কুসুম গরম)। তারপর সেখানে ছোট একটি রুমাল ভিজিয়ে কানের পেছন দিকে ধরুন৷ ইনশাআল্লাহ ব্যথা কমে যাবে।

#5 ডাক্তারের কাছে কখন যাবেন?

কান মানব শরীরের অত্যন্ত সংবেদনশীল অঙ্গ। কানের ব্যথায় যে আক্রান্ত হয়েছে সে ছাড়া এর গভীরতা কেউ বুঝবেনা। কানের সমস্যার অনেক কারণ রয়েছে। ভাইরাস ব্যাক্টেরিয়া কিংবা ছত্রাক জনিত আক্রমন, প্রদাহ, কর্ণকূহরে পানি ঢোকা, এলার্জি জনিত সমস্যা, ঠান্ডা,অতিরিক্ত হারে এয়ারফোন ব্যবহার করা ইত্যাদি কারণে আপনার কান অনেক ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে৷ তাই ব্যথা কয়েকদিন স্থায়ী হলেই ডাক্তারের কাছে দ্রুত সমাধান চাওয়াই বুদ্ধিমানের কাজ। 

কানের ব্যথা একবার যদি ক্রোনিক পর্যায়ে চলে যায় তাহলে বিপদ আরো বাড়বে। তাই ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী আপনার কানের সেবা করুন এবং সুস্থ সুন্দর থাকুন। 

This post was created with our nice and easy submission form. Create your post!

What do you think?

Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Loading…

0

পিএসজিকে পাত্তা না দিয়ে শিরোপা কেড়ে নিলো বায়ার্ন।

প্রজুক্তি সহজ করে দিচ্ছে সব কিছু। ভিডিওটি তারই প্রমান।